রবিবার, ২৬ Jun ২০২২, ০৭:৫৯ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
হাওর রক্ষা বাঁধে গাফিলতির জন্য দায়ি কারা ?

হাওর রক্ষা বাঁধে গাফিলতির জন্য দায়ি কারা ?

নিজস্ব প্রতিবেদক, মোঃ আবু সঈদঃ
হাওর রক্ষা বাঁধে গাফিলতির জন্য দায়ি কারা? সংশ্লিষ্ট প্রশাসন নাকি পি আই সি? সরকার কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নের কথা বিবেচনা করে বোর ফসলকে রক্ষার জন্য হাওর রক্ষা বাঁধের বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে দেখেছে। গত বছরের তুলনায় এই বছর প্রতিটি বাঁধের জন্য দ্বিগুণ বরাদ্দ দিয়েছে কিন্তু নীতিমালা অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ে কাজ হচ্ছে না। হাওর রক্ষা বাঁধের নীতিমালা তৈরি করে বিগত মৌসুম হতে পরিকল্পনা করছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। গত বছর নির্দিষ্ট সময়ে কাজ না হওয়াতে অকালে হাওরে পানি প্রবেশ করলে গাফিলতি ও দূর্নীতির দায়ে কৃষকদের আন্দোলনে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আফসার উদ্দিনকে হাতকড়া পড়ে যেতে হয়েছে জেলে। তাতে ও তো আমাদের মধ্যে ফিরে আসেনি আন্তরিকতা। কারা এর জন্য দায়ি? প্রশাসন না পি আই সি? কোনটি সঠিক? প্রতিদিন পত্রিকার পাতাখুললেই চোখে পড়ে হাওর বাঁধে অসমাপ্ত কাজের কথা, নীতিমালা লঙ্ঘণ করে বেড়িবাঁধ নিমাণের কথা, কোথাও বাঁধ ধ্বসে পড়ছে কোথা ও নাতিমালা না মেনে বাঁধের নিকট থেকে মাটি তুলছে আবার কোথা ও প্রস্হ এবং উচ্চতার নেই স্হবিরতা। অপ্রয়োজনীয় প্রকল্পের নামে বরাদ্দ হয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা। কৃষকের চোখে ফাকি দিয়ে চলছে পকেট মহোৎসব। সরকার কৃষকদের প্রতি যতেষ্ট আন্তরিক থাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ড ও সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষ যে পরিমাণ বরাদ্দ চেয়েছে তাহা অনুমোদন দিয়েছে। অনুন্নয়ন প্রকল্প গুলোতে এত বেশী বরাদ্দের প্রয়োজন ছিল না আবার কোথাও এই প্রকল্পগুলো নেওয়ার ও প্রয়োজন ছিল না। এই প্রকল্পগুলোতে বরাদ্দকৃত অর্থ প্রকল্পের নামে সরকারের লক্ষ লক্ষ টাকা অপচয় হচ্ছে কিন্তু কদর বাড়ছে পি আই সি সভাপতিদের। সরকার কৃষকদের প্রতি আন্তরিক বিধায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বাঁধ নির্মাণে যে বরাদ্দের আবেদন করছেন সরকার সেই পরিমাণ বরাদ্দ অনুমোদন দিয়েছে। এখন হতাশায় দিন গুনছেন কৃষকেরা। তারা না জেনে মুখ খুলতে পারছেন না। কৃষকদের অবগতির জন্য অনুমোদন হয়েছিল প্রতিটি পি আই সি’তে নির্দেশনামূলক সাইনবোর্ড। বাঁধের মাটিগুলো শক্ত অবস্হান তৈরির জন্য ড্রেসিং এর ব্যবস্হা রাখা হয়েছে এবং বৃষ্টির পানিতে যাতে মাটি কেটে নিতে না পারে তার জন্য বরাদ্দ রাখা হয় দূর্বাঘাস লাগানোর কিন্তু এগুলো তো দূরেই রয়ে গেল বাঁধে মাটি না ফেলেই সমাপ্ত হয়ে যাচ্ছে হাওর রক্ষা বাঁধ। এখানে সচেতন মহলের করণীয় কি ছিল? এগিয়ে আসা প্রয়োজন ছিল হাওর দূর্নীতির প্রতিবাদে। আমরা এই কোন সমাজে বসবাস করছি। যেখানে আমার নিজের ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য হাজার কৃষকের পেটে আঘাত করছি। এটা কি আমাদের সভ্যতা। আমরা তো সভ্যতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছি কিন্তু ঐ মানুষগুলো আমাদেরকে অসভ্য পরিচয় দিতে বাধ্য করছে। ধিক্কার জানানো উচিত ঐ দুর্নীতিবাজদের। তাদের জন্য আমাদের সমাজ আজ কলংকিত। জনগণ তাদেরকে বিশ্বাস করে,তাদের প্রতি জনগণের আস্হা রয়েছে কিন্তু তারা কি জনগণের আস্হা রক্ষা করতে পারছে? কেমন তাদের আন্তরিকতা? আমরা হাওর পাড়ের মানুষ আমাদের বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বণ বোর ফসল। গত বছর পাহাড়ী ঢলে অকালে প্রতিটি হাওরে পানি প্রবেশ করে তলিয়ে নিয়ে যায় সোনার ফসল। চোখের সামনে দেখতে দেখতে কৃষকের জীবনে নেমে আসে হা-হা-কার। ঠিকাদারদের গাফলতির কারণে বেড়িবাঁধ নির্মাণ না হওয়ায় পানি প্রবেশ করে হাওরে সেই শ্লোগানে কান্নাজড়িত কন্ঠে রাস্তায় নেমে আসে মানুষজন। তাদের কান্নার রোল সংবাদ মাধ্যমে সারাদেশে ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি সরকারের দৃষ্টিগোচর হয়। হতাশাগ্রস্হ মানুষের কান্না থামাতে ভাটি জেলা সুনামগঞ্জে ছুটে আসেন রাষ্ট্রপতি এডভেকেট আব্দুল হামিদ। মহামান্য রাষ্ট্রপতির সুনামগঞ্জে আসার আগমণে কৃষকদের স্বস্তি আসে। রাষ্ট্রপতির সংবাদ শ্রবণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বসে থাকতে পারেননি মানুষগুলো আত্মচিৎকার মিডিয়ার পর্দায় দেখে। ছুটে আসেন মানবতার নেত্রী কৃষককুলের বন্ধু তিনবারের সফল প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। তার আগমণের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কৃষকেরা বেঁচে থাকার জন্য পেয়েছিল চাল ডাল তেল সহ নগদ অর্থ ও নানাবিধ উপকরণ। কৃষকদের কৃষি উন্নয়নে দিয়েছে কৃষি উপকরণ সার, বীজ ও নগদ অর্থ। কৃষি ঋণ। সুনামগঞ্জের গৌরব ভাটিবাংলার উন্নয়নের রুপকার দক্ষিণ সুনামগঞ্জের কৃতি সন্তান সুনামগঞ্জ-৩ আসন থেকে বারবার বিপুল ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি বর্তমান সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জনাব এম এ মান্নান এম পি জেলার কৃষকদের জীবন রক্ষার্থে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন চর্তুদিকে। তার ডাকে সাড়া দিয়ে টেক্সটাইল মিলস,জনতা ব্যাংক সহ সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কৃষকদের সহায়তায় ছুটে আসেন সুনামগঞ্জে। জেলা প্রশাসক মোঃ সাবিরুল ইসলাম তাদেরকে বলেছিলেন আপনারা আগামীতে আসবেন আমাদের সুনামগঞ্জে দাওয়াত খেতে। আমরা কি আমাদের সেই বাণী অটুট রাখতে পারব? আমরা কি তাদের কাছে বার্তা পৌছে দিতে পারব কৃষকের মুখের হাসি? পারব যদি আমাদের সেই স্বদিচ্ছা থাকে। আমরা যদি নিজেদেরকে দেশপ্রেমিক মনে করি,সমাজসেবক মনে করি, সমাজের নিবেদিত প্রাণ হই। সেই ক্ষেত্রে আমাদের চেষ্টা ও আন্তরিকতা অব্যাহত থাকতে হবে। আসুন আমরা সমাজের নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করি। কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কৃষকদের পাশে দাড়াই।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com