বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০১:৪৫ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
অনুমতি ছাড়া তাবলীগে যাওয়ায় স্বামীর হাতে গৃহবধু খুন!

অনুমতি ছাড়া তাবলীগে যাওয়ায় স্বামীর হাতে গৃহবধু খুন!

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::
সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে অনুমমি ছাড়া তাবলীগে যাওয়ায় এবার বেপরোয়া স্বামী কাঁচি দিয়ে উপর্যুপরী ঘাঁয়ে সরুফা বেগম নামের এক গৃহবধুকে নির্মম ভাবে খুন করলেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার ভোররাতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েলে সরুফা নামের ওই গৃহবধুর লাশ কাক ডাকা ভোরেই বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়েছে অতি গোপনে দাফনের জন্য।,সরুফা উপজেলার শ্রীপুর উওর ইউনিয়নের কলাগাঁও পুর্বপাড় উওর হাঁটির কাপড় ব্যবসায়ী ফারুক মিয়ার স্ত্রী।’এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক স্বামী ফারুক মিয়াকে গ্রেফতার করেছে।’
পুলিশ ও স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, উপজেলার শ্রীপুর উওর ইউনিয়নের কলাগাঁও পুর্বপাড়ের উওর হাঁটির হাসিম মুন্সীর ছেলে কাপড় ব্যবসায়ী ফারুক মিয়া (৩৭)’র সাথে বেশ কয়েক বছর পুর্বে বিয়ে হয় পার্শ্ববর্তী চারাগাঁও মাইজ হাঁটির আবদুল মালেকের মেয়ে সরুফা খাতুন (৩০)’র।’ বিয়ের পর ফারুক ও সরুফা দম্পতির কোল জুড়ে জন্ম নেয় ১ ছেলে ও মেয়ে।’
এদিকে পারিবারীক অনুমতি ছাড়া অন্যান্য মহিলাদের সাথে পার্শ্ববর্তী গ্রামে তাবলীগের দাওয়াতি কাজে চলে যাওয়ায় ও সময়মতো কাপড় না কাঁটার জের ধরে বেপরোয়া ফারুক কাপড় কাঁটার কাঁচি (কেঞ্চি) দিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে স্ত্রী সরুফার হাতে ও তলপেটের একাধিক স্থানে ঘাঁ দিয়ে আহত করে স্থানীয় ভাবে প্রথিমিক চিকিৎসা দেয়। এতে শারিরীক অবস্থার উন্নতি না হলে ফের শুক্রবার বিকেলে পরিবার ও স্বজনরা সরুফাকে চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতালে নিয়ে না গিয়ে উপজেলার বাদাঘাট বাজারের স্থানীয় এক (মহিলা ও স্বামী) পল্লী চিকিৎসক দম্পতির নিকট বিকেলে নিয়ে আসলে রাতভর চিকিৎসা সেবার এক পর্যায়ে শনিবার ভোররাত সাড়ে ৪টার দিকে সে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।’ এক পর্যায়ে লোক জানাজানির আশংকায় অতিগোপনে শনিবার কাক ডাকা ভোরেই নিহতের লাশ বাবা আবদুল মালেকের চারাগাঁও মাইজহাঁটির বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয় রফাদফার মাধ্যমে দাফনের জন্য।’ কিন্তু লাশ বাড়ি পৌছার পর পেটের ব্যথায় সরুফার মৃত্যু হয়েছে এমন কথা ছড়িয়ে দিয়ে দাফনের আয়োজন করার পুর্ব্ইে সকাল ৮টার দিকে আশে পাশের গ্রামের লোকজন আবদুল মালেকের বাড়িতে জড়ো হয়ে বাঁধ সাধলে সরুফার খুনের বিষয়টি চাউর হতে থাকে।’
অভিযুক্ত ফারুকের সহোদর উসমান মিয়া শনিবার সকালে বলেন, উপজেলার বাদাঘাটে পল্লী চিকিৎসক দম্পতির তত্বাবধানে তাদের চেম্বারে সরুফাকে শুক্রবার রাতভর চিকিৎসা দেয়ার এক পর্যায়ে ভোররাত সাড়ে ৪টার দিকে সরুফা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।’ কী কারনে সরুফার মৃত্যু হয়েছে জানতে চাইলে উসমান কিছুক্ষণ নিরুক্তর থাকার এক পর্যায়ে বলে পেটের ব্যথায় ভাবী মারা গেছেন।’
নিহত সরুফার এক মেয়ে প্রতিবেশীদের জানিয়েছেন, তাবলীগে চলে যাওয়ায় তার বাবা ফারুক মায়ের সাথে বৃহস্পতিবার ঝগড়া করে ঘরে থাকা কাপড় কাঁটার কাঁচি দিয়ে প্রাণে মেরে ফেলার জন্য তাদের সামনেই মায়ের তলপেটে ও ফেরানোর সময় হাতে একাধিকবার ঘাঁ দিয়ে রক্তার্থ করে ফেলে রাখে। ’
নিহতের সন্তানদের দাবি লুকোচুরি না করে সময় মতো সরকারি হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করালে তাদের মায়ের এমন করুন মৃত্যু হতনা!
উপজেলার বাদাঘাটের মহিলা পল্লী চিকিৎসক সেলিনা বেগম সরুফাকে নিজ বাসায় রেখে রাতে চিকিৎসাসেবা দেয়ার কথা স্বীকার করে শনিবার বলেন, বাম হাতে ৭টি সেলাই দিয়েছি, আর তলপেটে সামান্য কাঁচির আঘাত ছিল তা দেখেছি,রোগীর প্রশ্রাব বন্ধ ছিল প্রশ্রাব করার ব্যবস্থার পর ব্যাথার জন্য ইনজেশন পুশ করেছিলাম।’
তাহিরপুর থানার ওসি শ্রী নন্দন কান্তি ধর শনিবার বলেন, পল্লী চিকিৎসক কোন অবস্থাতেই এ ধরণের জখমী রোগী চিকিৎসার দায়িত্ব নিতে পারেন না, সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য না নিয়ে যাওয়াটা এমনকি পল্লী চিকিৎসক দম্পতিও এ রোগীর অবস্থা আশংকাজনক জেনেও সরকারি হাসপাতালে ভিকটিমকে না পাঠিয়ে বেআইনি কর্মকান্ড করেছেন।’ তিনি আরো বলেন, এলাকার লোকজনের মাধ্যমে সকালে খবর পেয়েই তাৎক্ষলিক ভাবে লাশ উদ্ধারের পর অভিযুক্ত স্বামী ফারুককেও গ্রেফতার করা হয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com