শনিবার, ২৫ Jun ২০২২, ০৫:৩০ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
পঞ্চাশ বছর ধরে তেলগাছ দিয়ে সরিষার তেল তৈরি করছেন মহামায়া

পঞ্চাশ বছর ধরে তেলগাছ দিয়ে সরিষার তেল তৈরি করছেন মহামায়া

নিজস্ব প্রতিবেদক ::
সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার পৌরশহরের হারনপুরে দীর্ঘ ৫০ বছর ধরে শস্য থেকে তেলগাছ দিয়ে সরিষার তেল তৈরি করে আসছেন মহামায়া নন্দী।মহামায়া নন্দী বলেন ৫০ বছর আগে আমি এই তেল গাছ দিয়ে তেল তৈরি করার কাজ শুরু করি,বিভিন্ন জায়গা থেকে শস্য সংগ্রহ করে তেল গাছ ঘুরিয়ে খাঁটি সরিষার তেল তৈরি করি। আর এখন আমি অসুস্থ্য থাকায় আমার ছেলে তপু নন্দী রাতে এসে তেল তৈরির কাজ করে।
তার তৈরি তেলের গুণ স্ম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন কেমিক্যাল আর ভেজালের দুনিয়ায় আজকাল খাঁটি সরিষার তেল খুজে পাবেন না,আমি লোকেদের সামনেই খাঁটি তেল উৎপাদন করে আসতেছি। খাঁটি সরিষার তেল মানুষের অনেক উপকারে আসে। তিনি আর বলেন আমি যখন এই কাজটি শুরু করি তখন আমরা ভাড়াটিয়া বাসায় থাকতাম।খাঁটি সরিষার তেল নিতে দূর দূরান্ত থেকে মানুষ আসত।আর এই পদ্ধতিতে তেল তৈরি করে বিক্রয় করে আমি নিজে বাড়ি করেছি।সংসারের খরচ চালিয়েছি। এক মেয়ের বিয়ে দিয়েছি দুই ছেলে কে বিয়ে করিয়েছি।মহামায়ার ছেলে তপু নন্দী বলেন মায়ের অনেক বয়স হয়েছে তাই আগের মত কাজ করতে পারেনা। তাই একাজটা আমিও এখন করে থাকি।তিনি বলেন এক মন শস্য আমরা তিন হাজার টাকা দিয়ে কিনে থাকি আর এক লিটার সরিষার তেল তৈরি করতে প্রায় সারাদিন লেগে যায়, প্রতি লিটার তেল আমরা পাঁচশত টাকায় বিক্রয় করি।আর শস্যর খৈল আমরা ৭০ টাকা কেজি বিক্রয় করি এগুলো মানুষ মাছের খাবার হিসেবে কিনে নিয়ে যায়। তপু বলেন দিরাই উপজেলায় প্রথম আমার মা মহামায়া এ কাজ শুরু করেন।আর খাঁটি সরিষার তেল কবিরাজের কাজের জন্য,শিশুদের বিভিন্ন ওষধ তৈরি ছাড়াও বিভিন্ন গুণ বিধ্যমান থাকায় দূর দূরান্ত থেকে মানুষ আসে তেল নিতে।অনেকে তেল পরীক্ষা করে নিয়ে যান। তেল নিতে আসা হোমিও ডাক্তার বিবেকানন্দ মজুমদার বলেন আমি প্রতিমাসে এখান থেকে এক লিটার তেল নেই,এখানে খাঁটি সরিষার তেল পাওয়া যায় আর খাঁটি সরিষার তেলের গুনের শেষ নেই। শীতকালে কিংবা ঠাণ্ডাজনিত যেকোন উপসর্গে সরিষার তেল দারুণ ফলদায়ক। তাছাড়া সরিষার তেলের ব্যবহারে খাবার হয় সুগন্ধিময় অন্য কোনো তেল ব্যবহারে এতটা সুগন্ধ পাওয়া যায় না। এই তেল সর্দিকাশিতে শরীরে মালিশ করলে দারুণ উপকার পাবেন,এতে কোন সন্দেহ নেই। তাছাড়া এতেল নাবিতে দিলে বিভিন্ন রোগের কাজ করে।
তিনি বলেন এতে ষাট শতাংশ ‘মনোসেচু্রেটেড’ ফ্যাটের পাশাপাশি ‘পলিআনসেচুরেটেড’ফ্যাট থাকায় দারুণ স্বাস্থ্য হিতকর, যা অন্য খাবার-তেলগুলো থেকে পাবেন না। ওই উপাদানগুলো হার্ট,সংবহনতন্ত্র সুস্থ রাখার পাশাপাশি পরিপাকরস নি:সরণ বাড়াবে। এর ফলে খাবার খুব সহজে হজম হবে,বিপাকক্রিয়া বাড়বে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com