বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০২:৪৮ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
আজ মহান ২১শে ফেব্রুয়ারী ‘শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’

আজ মহান ২১শে ফেব্রুয়ারী ‘শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’

আজ মহান ২১শে ফেব্রুয়ারী “শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস”।আজ জাতিসংঘের উদ্দ্যোগে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে ভাষা শহীদদের স্মরণে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান ২১ শে ফেব্রুয়ারী ‘শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা’ হিসেবে পালিত হবে। ১৯৫২ সালের ঐ দিনে মাতৃভাষা বাংলার মর্যাদা রক্ষার জন্য যাদের রক্তে ঢাকার রাজপথ রঞ্জিত হয়েছিল তাদের স্মরণে প্রতি বছর এই দিবসটি পালন করা হয়। দিবসের প্রথম প্রহর (রাত -১২টা ১ মিনিট) হতেই সবার কন্ঠে বেজে উঠে- আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো ২১শে ফেব্রুয়ারী, আমি কি ভুলিতে পারি? আজ শহীদদের স্মরণে ও তাদের আত্মার শান্তি কামনায় সকল শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হবে। তাদের রক্তের বিনিময়ে আমরা আমাদের মাতৃভাষা বাংলাকে পেয়েছি, বাংলা ভাষায় কথা বলতে শিখেছি। পাকিস্তান জন্মের পরই পূর্ব পাকিস্তানের ৫৬ ভাগ মানুষ বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবি জানায় কিন্তু এই দাবি নানাভাবে উপেক্ষিত হয়। ১৯৪৮ সালে ২১শে মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্দ্যানে ও ২৩ শে মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলে এক সমাবর্তন অনুষ্টানে তৎকালীন পাকিস্তানের গর্ভণর জেনারেল কায়েদে আজম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেছিলেন- ” urdu and only urdu shall be the state language of pakistan “(উর্দু একমাত্র উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা)। ছাত্ররা উক্ত ঘোষণার প্রতিবাদ করে শ্লোগান দেয় রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই। তারপর ১৯৫২ সালের ২৬ জানুয়ারী পল্টন ময়দানে এক জনসভায় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিম উদ্দিন ঘোষণা করেন “উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা”। এর ফলেই ভাষা আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটে। ১৯৫২ সালের ২১ শে ২১শে ফেব্রুয়ারী “সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ পূর্ব বাংলায়” ধর্মঘট, সমাবেশের ও বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দেয় কিন্তু সরকার সকল প্রকার সমাবেশ, শোভাযাত্রা নিষিদ্ধ ঘোষণা করে ১৪৪ ধারা জারি করে। ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারী “সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ ১৪৪ধারা উপেক্ষা করে “রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই” শ্লোগান দিয়ে রাজপথে শান্তিপূর্ণ মিছিল বের করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের সামনে আসলে পাকিস্তানি শাসক গোষ্টীর তাবেদার সরকার উক্ত মিছিলে গুলি চালালে গুলিতে সালাম,বরকত,রফিক, জব্বার, শফিউর প্রমুখ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও তরুণ শহীদ হন এবং অনেকেই গ্রেফতার হন। সেদিন তাদের তাজা রক্তে ঢাকার রাজপথ রঞ্জিত হয়েছিল। এভাবে নৃশংস ছাত্র হত্যার প্রতিবাদে বাংলার আপামর জনসাধারণ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। প্রচন্ড বিক্ষোভের মুখে পাকিস্তান সরকার বাংলাভাষাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার প্রস্তাব গ্রহণ করে এবং ১৯৫৬ সালের সংবিধানে উর্দুর সাথে বাংলাভাষা পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে আনুষ্টানিকভাবে স্বীকৃতি লাভ করে। ভাষা আন্দোলন প্রমাণ করেছিল বাংলার জনগণ তাদের মাতৃভাষা বাংলাকে ভালবাসে । ছাত্রজনতা আন্দোলনের মাধ্যমে তাদের অধিকারকে ছিনিয়ে এনেছিল। পরবর্তীতে ১৯৯৯ সালের ৩০শে নভেম্বর জাতিসংঘের ইউনেস্কো কর্তৃক আর্ন্তজাতিক স্বীকৃতি লাভ করে। যাদের রক্তে এই ভাষাকে পেয়েছি আমরা তাদের গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করি। তাই প্রতিবছর এই দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়।

-লেখক: সাংবাদিক আবু সাঈদ

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com